বিজ্ঞানীরা দূষণ মোকাবিলায় সোচ্চার হলেন

Spread the love

আমাদের স্বীকার করতেই হবে যে আমাদের পৃথিবী দূষনের হাতে বিপন্ন। বিশ্বব্যাপী শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞান একাডেমী একটি বিবৃতিতে বলেছে যে বর্তমান এবং ভবিষ্যতের
গুরুতর বিপন্নতা থেকে উপকূলীয় এবং সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রকে রক্ষা করার ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে।

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশগুলির সমন্বয়ে তৈরি জাতীয় একাডেমী, যা এস 20 নামে পরিচিত, সম্প্রতি জাপানে একটি বক্তব্যে সামুদ্রিক পরিবেশের সর্বাধিক বিপদগুলি বর্ণনা করেছে। যেমন, প্লাস্টিকের ধ্বংসাবশেষ এবং অন্যান্য দূষণ, মাছ ধরার ক্ষতিকর অভ্যাস, এবং গ্লোবাল ওয়ার্মিং, মহাসাগরের অম্লতা বৃদ্ধি এবং মহাসাগরের ক্রমহ্রাসমান অক্সিজেনের হার।

বিবৃতিটি সামুদ্রিক পরিবেশ এবং মহাসাগরীয় স্বাস্থ্য সম্পর্কিত অনভিপ্রেত প্রভাবগুলি সমাধানের জন্য বিশেষজ্ঞদের গবেষণা, উদ্ভাবন এবং প্রমাণ-ভিত্তিক পন্থার গুরুত্বকে জোর দিয়েছে,যা বাস্তুতন্ত্র এবং মনুষ্যজাতির কল্যাণের সাথে সম্পর্কিত। এটি পুনর্ব্যবহারযোগ্য শক্তির অনুশীলন, পাশাপাশি সর্বস্তরের বিশ্বব্যাপী সহযোগিতায় উপকূলীয় এবং সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রের উপর স্ট্রেসার হ্রাস করার জন্য বিজ্ঞানভিত্তিক লক্ষ্যমাত্রা তৈরির পরামর্শ ও উৎসাহ দিয়েছে।

একাডেমী ফেলো অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর চেরিল প্রিজার এই অনুষ্ঠানে অস্ট্রেলিয়ান একাডেমী অফ সায়েন্সের প্রতিনিধিত্ব করেন এবং কোরাল রিফ বিশেষজ্ঞ একাডেমী ফেলো প্রফেসর টেরি হিউজেস এই বক্তব্যের পরামর্শ দেন।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে-র কাছে “মহাসাগরীয় পরিবেশের ক্ষয়ক্ষতি ও সামুদ্রিক ইকোসিস্টেমগুলির সংরক্ষণ – জলবায়ু পরিবর্তন ও সামুদ্রিক প্লাস্টিকের বর্জ্যের ক্ষেত্রে বিশেষ মনোযোগ” নামক বিবৃতিটি পেশ করা হয়েছে।

এই প্রথমবার এশিয়ায় এস20 অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

সৌদি আরবে 2020 সালের এস 20 এবং জি20 বৈঠকগুলি অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.