আরও কিছু বিমান বসে গিয়ে জেট এয়ারওয়েজের সংকট গভীরতর হতে পারে

Spread the love

জেট এয়ারওয়েজের আরও বিমান বাতিল করতে হতে পারে, যাতে বিমান সংস্থাটির ক্রমাগত সংকট নিয়ে উদ্বেগ আরও বাড়বে।

নিউজ এজেন্সি রয়টার্স বলেছে, সরাসরি সম্পর্কযুক্ত সূত্রগুলি মারফত জানা গেছে
বিমানগুলির প্রায় ছয়জন ইজারাদার আগামী 10 দিনের মধ্যে 15 টি প্লেন যা আগে থেকেই বসে গেছে তাদের বাতিল করার আবেদন করবে সুপারভাইজার জেনারেল অফ সিভিল এভিয়েশন এর কাছে।


এই বিমানগুলি আগের পাঁচটি বিমানের তালিকায় সংযুক্ত হতে চলেছে যা এমসি এভিয়েশন পার্টনার্স নামের মিত্সুবিশি কর্পোরেশন এর একটি সহায়ক কোম্পানীর ছিল।


একবার বাতিল করতে পারলে বিমানগুলিকে ইজারাদাররা দেশের বাইরে নিয়ে যেতে এবং অন্যান্য এয়ারলাইনকে তা সরবরাহ করতে পারবে।


জেটের সাথে পারস্পরিক চুক্তির মাধ্যমে ইতিমধ্যেই কিছু ইজারাদার তাদের বিমানগুলি নিয়ে গেছে, সূত্র জানায় যে সর্বশেষ আবেদনগুলি পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে হচ্ছেনা ।


এটি জেট এয়ারওয়েজের সংকটকে আরও গভীর করে তুলেছে যে তাদের 119 টি বিমানের তিন-চতুর্থাংশেরও বেশি ফ্লাইটে বসে আছে, যা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ইজারাদারদের পাওনা না দেওয়ার কারণে। এর ফলে শত শত ফ্লাইট বাতিল হতে চলেছে।

এক্ষনি এটা স্পষ্ট হয়নি যে এর মধ্যে কোন কোন ইজারাদাররা আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ডি-রেজিস্ট্রেশন করার জন্য আবেদন করার পরিকল্পনা করেছে।


জেট এয়ারোয়েজের 119টি বিমানের মধ্যে প্রায় 100টি বিমানই প্রধানত বোয়িং। বিমানগুলি এভোলন, জি ই ক্যাপিটাল এভিয়েশন সার্ভিসেস এবং এয়ারক্যাপ হোল্ডিংসের মতো সংস্থাগুলির থেকে লিজে নেওয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *