Spread the love

জামিন পেলেন না নীরব মোদী। 20 মার্চ গ্রেফতার হওয়ার পর তাকে পশ্চিম ইউরোপের সবথেকে বড় সংশোধনাগার হার ম্যাজেস্টিতে তাকে রাখা হয়। নিম্ন আদালতে নীরব মোদীর জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ায়, রায় পুনর্বিবেচনা করার জন্য হাইকোর্টের দারস্থ হন নীরব। পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক প্রতারণাকান্ডে অভিযুক্ত হওয়ার জন্য ভারতে ওয়ান্টেড তালিকায় নীরব মোদীর নাম রয়েছে। এই মামলার আরেকজন অভিযুক্ত নীরবের মামা মেহুল চোক্সি। 2018 সালে সিবিআই তদন্ত হওয়ার আগেই দুজনেই দেশ ছেড়ে পালান।

বিচার চলাকালীন আদালতে নীরব জানান, 2018-এর জানুয়ারি মাসে তিনি ব্রিটেনে পৌঁছান, তার আগে তার নামে কোনও দুর্নীতির অভিযোগ ছিল না। এছাড়া ব্রিটেনে বৈধভাবে থাকার পাশাপাশি তিনি সেখানে চাকরি করছেন এবং কর দিচ্ছেন।

“সাক্ষীদের বয়ানে হস্তক্ষেপ করা” এবং সাক্ষ্যপ্রমাণ লোপাট করার প্রমাণ রয়েছে নীরবের বিরুদ্ধে। বিচারপতি জানান, তাঁর পক্ষে এটা খুঁজে বের করা খুব কঠিন, যে আত্মসমর্পণ এড়াতে চাওয়া এক ব্যক্তির কাছে ব্রিটেন কেন আদর্শ জায়গা হয়ে উঠবে।  তিনি আরও বলেন, “বিশ্বে আরও জায়গা আছে, যেগুলি আত্মসমর্পণ এড়ানোর জন্য আদর্শ জায়গা হয়ে উঠতে পারে, তিনি সেখানে যেতে পারেন”। লন্ডনে ওয়েস্টমিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে তিনবার জামিন খারিজ হয় নীরব মোদীর। বিচারক বলেন, তাঁর জামিন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবে।

বর্তমানে অ্যান্টিগায় রয়েছেন মেহুল চোক্সি এবং তিনি সেখানকার নাগরিক। স্বাস্থ্যজনিত কারণ দেখিয়ে ভারতে ফিরবেন না বলে জানিয়েছেন মেহুল চোক্সি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may have missed